শেয়ার করুন:

প্রথম কাব্যগ্রন্থ, প্রথম কবিতা আড্ডাপত্র প্রকাশ করছে। প্রথম কাব্যগ্রন্থের সাথে কবির আনন্দ, উচ্ছ্বাসের পাশাপাশি পাঠকের কানে নতুন কবিতার গুঞ্জরণ ভেসে আসে। পাঠকের মনে কবির প্রথম কাব্যগ্রন্থের প্রথম কবিতাটি তুলে ধরতে চায় আড্ডাপত্র। কবিতা পাঠের সাথে সাথে জানবো কবি সম্পর্কেও। এই আয়োজনটি পরবর্তীতে গ্রন্থাকারে প্রকাশিত হবে..

চলে যাবো প্রতিকূলে

তমিজ উদদীন লোদী

কখনো নিরাশ নই
বাতাসের প্রতিকূলে বিস্তারিত রসদ নিয়েছি
নৌকোর দড়ি ও বৈঠা যা যা লাগে।
স্রোতের অনুকূলে তো সকলেই যায়
আমি না হয় অন্যভাবে পাড়ি দেবো প্রমত্ত সাগর
এখানে তো বৈষয়িক লাভালাভ মানুষের খুনসুটি
কে কাকে মাড়াতে পারে কে কাকে করতে পারে খুন ও জখম
এই তো চলেছে এখন। সিঁড়ি টপকাবার বিতিকিচ্ছরি সব
কায়কারবার। আর কিছু নাই হোক আপাততঃ এই সব থেকে
চলেছি উজানে। সম্ভবতঃ বিপরীতটা পেয়েও যেতে পারি।
তবুও তর্জনী তুলে গর্জন করে হিসেবী মানুষ
তুমি কী ভাঙতে পারো প্রচলিত নিয়ম কানুন?
আমাদের পিতা ও পিতামহেরা কেউ কোনোদিন
যায়নিতো প্রতিকূলে, তুমিও যাবে না
তবুও নিবৃত্ত নই উজানে যাবোই
দ্যাখবো কেমন আছে উজানের প্রতিটি মানুষ।
বাতাস প্রচণ্ড হবে বারবার উচ্চারিত হবে তীব্র হুঁশিয়ারি
সমুদ্র ফুঁসে উঠবে বিদীর্ণ হবে আকাশ ও আঙ্গিনা
কিছু কিছু ধ্বংস হবে বসতি মানুষ
তাতে কী, ধ্বংসই তো গড়ে তোলে নব্য জনপদ।
কখনো নিরাশ নই
মানুষের তাৎক্ষণিক ভাগ্য বিপর্যয়ে
এখনো কর্মিষ্ঠ হাত তুলে আনে হলুদ ফসল
এখনো নদীর জল অনুকূলে প্রবাহিত হয়
এখনো জীবন নাচে আশ্বাসের অমল বাণীতে।
নৌকো ভাসাবোই প্রতিকূলে
কে কে যাবে চলে এসো, না হয় একাকী
ভাসাবো তরণী জলে। আমি জানি উজানেই স্বস্তি আর

সম্ভবতঃ সমাধান আছে।

[ তমিজ উদদীন লোদী আশির দশকের উল্লেখযোগ্য কবি। গল্পকার, অনুবাদক হিসেবেও তিনি দক্ষতার প্রমাণ রেখেছেন। জন্ম ১ জানুয়ারি ১৯৫৯, সিলেট জেলার বিয়ানীবাজার উপজেলার মাথিউরা গ্রামে । পিতা: আব্দুর রকিব লোদী , মাতা: তফুরুন নেছা । ১৯৭৪ সালে পঞ্চখহণ্ড হরগোবিন্দ উচ্চ বিদ্যালয় (বিয়ানীবাজার) থেকে মাধ্যমিক ও ১৯৭৬ সালে সিলেট সরকারি কলেজ ( এমসি কলেজ) থেকে বিজ্ঞান বিভাগে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন। সিলেট পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট থেকে ১৯৮৩ সালে ডিপ্লামা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং পাস করেন এবং ১৯৮৪ সালে বাংলাদেশ রেলওয়েতে প্রকৌশলী হিসাবে যোগদান করেন । দীর্ঘ চাকরীজীবন শেষে পাঁচ বছরের লিয়েন নিয়ে ২০০৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রে গমণ করেন । এসময় তিনি দ্য সিটি ইউনিভার্সিটি অব নিউইয়র্ক -এর অধীনে কিউনি স্কুল অব প্রফেশনাল স্টাডিজ (CUNY School of Professional Studies) থেকে বিজনেস কমিউনিকেশন এণ্ড মিডিয়া বিষয়ে ২০০৮ সালে স্নাতক ডিগ্রী লাভ করেন । পাঁচ বছর পর ছুটি শেষে আবার বাংলাদেশ রেলওয়েতে যোগ দেন এবং ২০১১ সালে স্বেচ্ছা-অবসরে যান এবং যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসী হন। বর্তমানে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে প্রবাস জীবনযাপন করছেন।
কবি তমিজ উদ্দীন লোদী লেখালখি শুরু করেন ১৯৭৬ সালে। সিলেট সরকারি এম সি কলেজ থেকে প্রকাশিত ম্যাগাজিন ‘পূর্বাশা’য় গল্প প্রকাশের মাধ্যমে তিনি লেখক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন।
তাঁর প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ: কখনো নিঃসঙ্গ নই (১৯৮৫); এক কণা সাহসী আগুন (১৯৯২); নানা রঙের প্যারাশূট (১৯৯৭); চাঁদভস্ম (২০০৪); আমাদের কোনো প্লাতেরো ছিল না (২০১২); অনিবার্য পিপাসার কাছে (২০১৬); নির্বাচিত কবিতা (২০১৭); আনন্দময় নৈরাশ্য ও ইস্পাত মানুষেরা (২০১৭); দৃশ্যকল্প ও কতিপয় রাতের রমণী (২০১৮)।
গল্পগ্রন্থ: হ্রেষাধ্বনির বাঁকবদল (২০০৩); নিরুদ্দিষ্টের জলাবর্ত (২০০৫); হাডসন স্ট্রিটের সুন্দরী এবং (২০১১); নির্বাচিত গল্প (২০২০)।
অনুবাদ: শতাব্দীর সেরা আমেরিকার নির্বাচিত গল্প (২০০৩)।

Facebook Comments