শেয়ার করুন:

ঘুড়ি হয়ে উড়ছি

চটি পায়ে চলি গাঁয়ে চলমান থাকছি
চলাচলে চৌদিক চমকিয়ে ডাকছি
ডাল ধরে ডাল মিয়া ডলাডলি দিচ্ছে
দোলখেলা কর্মে দুলে মজা নিচ্ছে।

নিভু নিভু জ্বলে বাতি আন্দারে পটকা
পটপাট ফটফাট ফুটিয়েছে ফটকা।
ফুটাফুটি শব্দেই ভিতু হয়ে থাকছি
থালাবাটি খালিবাজে পাখিডাকা ডাকছি।

চটপটে লটপটে সান্ডে ও মান্ডে
মামুলী এ গাছটায় কুশি ছাড়ে কাণ্ডে
কাকাতুয়া দেয় হাসি হাসি দেয় ঝন্টু
চলমান থাকে খুব মন ভোলা মন্টু।

ডাক দিলে ডাকুবাবু ডানদিকে ঘুরলে
ঘোড়া মাঠে দেয় লাফ ঘুড়ি ঝড়ে উড়লে–
ওড়াউড়ি করে ঘুড়ি নাড়া দেয় হাতটা
হারমানা গল্পে বাজিমাত চাঁদটা

মানভাঙা অভিনয়ে অবিচল গল্প
গোলগাল চাঁদ দেখে হাঁটে দাদু অল্প–
অসীম সাহসে হেঁটে বুড়োদাদু চলছে
জটলায় দাঁড়িয়ে সে চটপট বলছে—

বলরাম বাবুজির জীবনের মুর্ছি
ঘড়ি দেখি ঘুড়ি দেখি ঘুড়ি হয়ে উড়ছি।

হৈচৈ

আচমকা ঘটনাটি কী করে যে ঘটে যায়
সাধারণ মানুষেরা হুক্কারে চটে যায়
চারদিকে হৈচৈ হৈ হৈ রইরই
রণবীর রবিনের ভিড় ঠেলা কাণ্ডে
কাকডাকা ভোরে হাওয়া বৈরী
বোকাসোকা মানুষেরা ঠিক থাকে তৈরী
কিলঘুসি খাচ্ছে
কে যে কী চাচ্ছে
খোলামেলা কাণ্ডে ভণ্ডর বাকলে,
বাঁধভাঙা জোয়ারে জল আসে যেমনি
রক্তের ধারাতেই লাশ ভাসে তেমনি
হৈ হৈ রইরই
কই কই খুকু কই
ভিড় হতে খোকাখুকু বের হতে চাচ্ছে
হাত ছেড়ে দিছে বাবু কই যেন কাঁদছে
আচমকা ঘটনায় হৈচৈ পাওয়া যে
কান্নাও হারালো হৈ হৈ আওয়াজে।

পাখি নাকি মানুষ

উড়ন্ত পাখি তুমি
দূরন্ত ছবি
মেঘ হও পাখি হও
হও তুমি কবি
কবির কবিতা হয়ে
ভেসে থাকো জলে
একা একা হাঁটাহাঁটি
মানুষের দলে।

মানুষ হতে তুমি
চেয়ে ছিলে ভাই
ইচ্ছে পূরণ তোমার
মোটে হয় নাই।

মানুষের চেহারায়
বেঁচে আছো ঠিক
জীবনটা হয়ে গেছে
লোহার এক শিক।

ছাতা

মাথার উপর রাখি ছাতা
তাপদাহ তাড়াতে
তরতরিয়ে হাঁটতে থাকি
দাদাকে ঠিক হারাতে।

দাদার মাথায় নেইতো ছাতা
হাতে বেতের লাঠিতো
দাদার প্রিয় নাতি হয়ে
সঙ্গী হয়ে হাঁটিতো।

দাদাও হাঁটে আমিও হাঁটি
বৃষ্টি আসে ঝাঁপিয়া
আমার ছাতা দাদার হাতে
আমি হাঁটি চাপিয়া।

চাপাচাপি বৃষ্টি খেলায়
দাদা খোঁজে ক্রিয়াপদ
দাদার পাশে হাঁটতে গিয়ে
থাকছি আমি নিরাপদ।

পাঁচ এপ্রিল দুই হাজার একুশ

চারদিকে ঝড় কাঁপে কুঁড়েঘর
ওয়া ওয়া বোল মুখে
পাঁচ এপ্রিল তারা ঝিলমিল
ধরনির এই বুকে।

কান্নার বোল হাসিমাখা কোল
সুখ জড়ানো হাসি
আলো সরবর ছোট কুঁড়ে ঘর
আছে মা পাশাপাশি।

ওয়া ওয়া মুখে হাসি সুখে-দুখে
বাংলা মায়ের কূলে
মেঘ কালো রাত ঢেকে দেয় চাঁদ
কেউ নেয় কোলে তুলে।

ভেঙে যায় ঘোর দেখামেলে ভোর
মায়ের বদনখানি
ছায়াঢাকা পথে নতুন এক রথে
সদা দেয় হাতছানি।

পাঁচ এপ্রিল খুঁজেফিরে মিল
জন্মের ইতিহাস
বাংলার বুকে জন্মেছি সুখে
বাংলায় বসবাস।

Facebook Comments